দেশের ক্রিকেট সংস্কৃতি নিয়ে সাকিব আল হাসানের বক্তব্য

আ্যান্টিগা টেস্টের পর সেন্ট লুসিয়া টেস্টেও বাজেভাবে হেরেছে টাইগাররা।বিগত কয়েক টেস্টের বাংলাদেশের বাজে পারফরমেন্স চারদিকে দিয়ে সমালোচনার ঝড় তুলেছে। অনেকে তো টাইগাররা টেস্ট খেলার যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন ।

 

দুই দিনের বৃষ্টিতে সেন্ট লুসিয়া টেস্টটা রূপ নিয়েছিল খন্ডাংশে। তৃতীয় ও চতুর্থ দিনের বেশিরভাগ সময় খেলাই হতে পারেনি। আর সেই টেস্টেই কিনা বাংলাদেশ ১০ উইকেটের হার মেনে নিয়েছে চারদিনও পুরো শেষ না করে! এর আগে অ্যান্টিগার প্রথম টেস্টেও ৭ উইকেটের হারটা এসেছিল ১০ সেশন না খেলেই।

 

এমন একটা সিরিজের পর অধিনায়ককে কাটা কাটা প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সাকিব আল হাসান সেই সুযোগ দিলে তো! ড্যারেন স্যামি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে কাল ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের দুই সাংবাদিকের কাছে তাঁর পাল্টা প্রশ্ন—বাংলাদেশে টেস্ট ম্যাচ দেখে কয়জন?এই সিরিজে নতুন করে অধিনায়কত্ব পাওয়ার আগে সাকিব নিজে টেস্টে নিয়মিত ছিল না। দলের আরো কেউ কেউ টেস্ট খেলতে আগ্রহী নয়, এমন একটা গুঞ্জন তো আছেই। সেটিকেই সামনে এনে সাকিবের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, সাদা পোশাকের ক্রিকেটের প্রতি অনীহাও টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের ভালো না খেলার একটা কারণ কি না। খেলোয়াড়েরা টেস্টের প্রতি পুরোপুরি মনোযোগী তো?

 

সাকিব বললেন না যে প্রশ্নের মর্মার্থটা ভুল। বরং সেটি মেনে নিয়েই বললেন, ‘খেলোয়াড়দের এখানে খুব বেশি দোষ দেওয়াটা ঠিক হবে না। শুধু খেলোয়াড়দেরই দোষ দিলে হবে না। আমাদের দেশের সিস্টেমটাই কিন্তু এমন। আপনি কবে দেখছেন বাংলাদেশে ৩০ হাজার দর্শক টেস্ট ম্যাচ দেখছে বা ২৫ হাজার দর্শক মাঠে এসেছে টেস্ট দেখতে?’

 

বাংলাদেশ দলের টেস্টের ফলাফলটাকে মানুষ যাদের কাতারে বা যাদের অন্তত কাছাকাছি দেখতে চায়, সাকিব সেই সব দেশেরই উদাহরণ টেনে বললেন, ‘ইংল্যান্ডে তো প্রতি ম্যাচে (টেস্ট) এরকম দর্শক থাকে। টেস্টের সংস্কৃতিটাই আমাদের দেশে ছিল না কখনো, এখনো নেই।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.