নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও ইরানের তেল রফতানি, বেড়েছে ৩ গুণ

মার্কিন কঠোর নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই ইরানের তেল রফতানি ৩ গুণ বেড়েছে। এই তথ্য জানিয়েছে অপরিশোধিত তেল রফতানিকারক দেশগুলোর সংস্থা ওপেক।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন বলেছিল, ইরানের তেল বিক্রি শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা হবে। তবে তেহরানও ঘোষণা দিয়েছিল, দেশটি যতটুকু পরিমাণ তেল রফতানি করতে চাইবে তা আটকানোর সাধ্য কারো নেই।

ওপেকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান ২০২১ সালে তেল বিক্রি করে ২৫ বিলিয়ন ৩১৩ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে।

সংস্থাটি শুক্রবার তার বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে, ২০২১ সালে এই সংস্থার তেল খাতে আয় শতকরা ৭৭ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। খবর মেহের নিউজের।

২০২০ সালের তুলনায় ইরানের এই আয় ছিল তিন গুণেরও বেশি। ২০২০ সালে ইরান মাত্র ৭ বিলিয়ন ৯১৪ মিলিয়ন ডলারের তেল বিক্রি করেছিল।

ওপেক এমন সময় ইরানের তেল বিক্রির এই পরিসংখ্যান তুলে ধরল যখন তেহরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে।

 

বর্তমান জো বাইডেন প্রশাসন ট্রাম্প প্রশাসনের ইরাননীতি হুবহু অনুসরণ করে গেলেও বেড়েছে দেশটির তেল রফতানি।

এদিকে ওপেক জানিয়েছে, গত বছর তেল রফতানি করে সংস্থাভুক্ত দেশগুলো ৫৬০ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে যা তার আগের বছরের তুলনায় শতকরা ৭৭ ভাগ বেশি।

২০২০ সালে ১৩ সদস্যবিশিষ্ট ওপেক তেল খাতে আয় করেছিল মাত্র ৩১৭ বিলিয়ন ডলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.