মুস্তাফিজকে ছাড়াই দিল্লির জয় মুম্বাই ইন্ডিয়ানস এর বিপক্ষে।

মুস্তাফিজ বিহীন দিল্লির প্রথম জয় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এর বিপক্ষে।

টি-টুয়ান্টি হল চার ছক্কার খেলা। আর আইপিএলকে বলা হই চার ছয়ের মিলনমেলা। যেখানে প্রতিটি ওভারেই দর্শকরা উপভোগ করে থাকে ব্যাটসমেন্দের নান্দনিক চার ছক্কার মার। কখনো বা বলারদের ম্যাজিক । সব মিলিয়ে আইপিএল এখন আনন্দ খোরাকের অন্য তম মাধ্যম । এবারের আইপিএল আসরের ২য় ম্যাচে দিল্লির সাথে টসে হেরে ব্যাট করতে নামে মুম্বাই। এই ম্যাচে দলীয় সংগ্রহ গিয়ে দাঁড়ায় ১৭৭। এটা ছিল এবারের আসরের সর্বোচ্চ রান। মুম্বাইয়ের দেয়া ১৭৭ রানের ইনিংস তারা করতে মাঠে নামে দিল্লি কেপিটালস। দিল্লির ব্যাটারদের প্রথমে স্ল ব্যাটিং করায় ম্যাচ থাকে মুম্বাইয়ের দিকে। ক্রিকেট খেলাই একটি প্রচলিত প্রবাত আছে ক্যাচ মিস ত ম্যাচ মিস ঠিক এই কাজটাই করে বসে মুম্বাই। যার খেসারতও দিতে হয়েছে তাদের। ক্যাচ মিসের কারনেই ম্যাচ টাই মিস হয়ে যাই মুম্বাইয়ের। ক্যাচ মিসের সর্বোচ্চ সুযোগ টা লুফে নেই দিল্লির
ব্যাটাররা। ১৭৭ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৬ উইকেট হারিয়ে ৪ উইকেটের বড় জয় পায় দিল্লি কেপিটালস। এ ম্যাচে ব্যাট করে ইশান কিশান (৪৮) বলে ৮১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে এবার আইপিএল এ নিজের প্রথম ফিফটি তুলে নেন তিনি। মুম্বাইয়ের স্টার বলার বুমরা থাকে আজকে অনেকটাই খরচে। তবে দিল্লির হয়ে কুলদিপ থাকে দারুন ছন্দে ৪ ওবারে ১৮ রান দিয়ে একাই তুলে নেন ৩ উইকেট। মুম্বাইয়ের হয়ে ভাল বল করেছেন আসউইন ও বাসিল তাম্পি। দিল্লির শেষের দিকে ব্যাটিংয়ের জন্য জয়ের নায়ক বলাই যায় আকসের পাটেলকে তিনি ১০ বলে করেন ৩৮ রান। অপর প্রান্তে একই ভুমিকা পালন করেন লালিত ৩৮ বলে ৪৮ রান করে পরিসেসে ফিজের দিল্লি কেপিটালস পেয়েছে দুরদান্ত একটি জয়। মুস্তাফিজকে ছাড়াই মাঠে নামে দিল্লি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.